বাধ্য হয়ে মিমের ‘পরাণে’র পুরো শো কিনে নিলেন দুই বন্ধু

মুক্তির ষষ্ঠ সপ্তাহে এসেও বিদ্যা সিনহা মিমের ‘পরাণ’ অপ্রতিরোধ্য। পর্দার ‘অনন্যা’ চুম্বকের মতো দর্শক টানছে। এরইমধ্যে দেশের বাইরে মুক্তি পেয়েছে সিনেমাটি। সেখানেও একই চিত্র দেখা গেছে। সব টিকিট সোল্ডআউট হওয়ায় অনেকেই সিনেমাটি দেখতে ব্যর্থ হচ্ছেন। এমনটাই ঘটে অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী দুই বন্ধু সাব্বির চৌধুরী ও সালমিন সুলতানা তানহার সঙ্গে। টিকিট না পেয়ে বাধ্য হয়ে সিনেমাটির পুরো শো কিনে নিয়েছেন তারা।

সাব্বির ও সালমিন তাদের পরিবার ও বন্ধুদের নিয়ে একসঙ্গে ‘পরাণ’ দেখবেন বলে ঠিক করেছিলেন। প্রথম সপ্তাহেই সিনেমাটি দেখবেন বলে পণ করেছিলেন তারা। কিন্তু টিকিট পাচ্ছিলেন না। পরে মাথায় বুদ্ধি আসে। দুই বন্ধু পরিকল্পনা করলেন সিনেমাটির পুরো একটি শো কিনে নিলে কেমন হয়? যেই ভাবা সেই কাজ। পরাণে’র অস্ট্রেলিয়ান ডিস্ট্রিবিউটরদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেন। তারপর আলোচনার মাধ্যমে তাঁদের থেকে কিনে নিলেন সিনেমাটির শো।

আগামী শনিবার সিডনির হয়েটস ব্যাংকসটাউন সিনেমাসে স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার শোতে ‘পরাণ’ দেখবেন তারা।

এ প্রসঙ্গে সাব্বির বলেন, ‘অতীতে আমি অস্ট্রেলিয়ায় বাংলা সিনেমা ডিস্ট্রিবিউশন করেছি। তা ছাড়া এখানে বহু বছর থাকার কারণে অনেক বড় একটা অডিয়েন্স আমাকে চেনেন। তারা আমাকে পারসোনালি ও ফেসবুকে বিভিন্ন বাংলাদেশি অস্ট্রেলিয়ান গ্রুপে টিকিট না পাওয়ার কথা জানাচ্ছিলেন। আমি যেহেতু সবসময়ই কাজ করি অডিয়েন্সের জন্য, সেখান থেকেই আমি ইনিশিয়েটিভটা নেই।’

বাধ্য হয়ে মিমের ‘পরাণে’র পুরো শো কিনে নিলেন দুই বন্ধু

সালমিন বলেন, ‘দুজনে মিলে সিদ্ধান্ত নিলাম স্পেশাল কোনো শো করা যায় কি না। অস্ট্রেলিয়ায় সিনেমার পরিবেশকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে আশানুরূপ সাড়া পাই। তারা সম্মত হন, আমাদের জন্য শোয়ের ব্যবস্থা করে দেবেন। তাদের ধন্যবাদ জানাতে চাই আমাদের অনুরোধ রেখেছেন বলে।’

জানা গেছে, ১৪ আগস্ট থেকে দেশটির সিডনি ও মেলবোর্ন, পার্থ, ডাব্বু ও ক্যানবেরার ১৩টি প্রেক্ষাগৃহে ৩২টি শো হবে ‘পরাণে’র। এরমধ্যে ১৬টি শোয়ের টিকিট অগ্রিম বিক্রি হয়ে গেছে।

‘পরাণে’র মতো ‘হাওয়া’র টিকিট পেতেও একই সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে সাব্বির-সালমিনকে। আর তাই ‘পরাণে’র পাশাপাশি ‘হাওয়া’র একটি শো কিনেছেন তারা।

191 thoughts on “বাধ্য হয়ে মিমের ‘পরাণে’র পুরো শো কিনে নিলেন দুই বন্ধু

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *